জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: যুদ্ধাপরাধ মামলায় ফাঁসি কার্যকর হওয়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর চট্টগ্রাম শহরস্থ গুডস হিলের বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে নগর ছাত্রলীগ কর্মীরা।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েমের নেতৃত্বে এই ভাঙচুর চালানো হয়।এতে অংশ নেন চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ, হাজী মুহাম্মদ মহসীন কলেজ ছাত্রলীগ ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের শতাধিক নেতা-কর্মী। এসময় তারা বাড়ির ভেতরে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। প্রায় ২০টি ব্যক্তিগত গাড়ি ও নিরাপত্তা প্রহরীদের বাসাসহ মূল ভবনে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়। প্রায় ৩০-৪০ মিনিটে ভাঙচুর চালানো পর মূল সড়কে এসে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন ছাত্রলীগ। পরে মিছিল নিয়ে চক বাজারের দিকে চলে যায় তারা।

হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যান। হামলার সময় সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছোট ভাই মৃত সাইফুদ্দিন চৌধুরীর স্ত্রী সেলিনা কাদের চৌধুরী বাসায় ছিলেন।

তিনি বলেন, দেড়শ’র মতো সন্ত্রাসী অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় বাসার সামনে রাখা ৮টি বিএমডব্লিউ গাড়ি, ২টি ভক্সি ও ১০টি অন্যান্য গাড়িতে ভাঙচুর চালায়। এসময় বাড়ির চারদিকের সিসিটিভি ক্যামেরাও ভেঙে ফেলেছে হামলাকারীরা।

তিনি আরো বলেন, সন্ত্রাসীরা মূল গেটের কেয়ারটেকার মজিবুর রহমানকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে। সাইফ আলী নামে বাড়ির এক কর্মচারীর হাত ভেঙে দিয়েছে তারা।

দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বলেন, যুদ্ধাপরাধ মামলায় ফাঁসি কার্যকর হওয়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছোট ভাই বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াস কাদের চৌধুরী মঙ্গলবার এক বক্তব্যে বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মৃত্যু হবে তার বাবার চেয়েও করুণ।’

তিনি বলেন, এমন ন্যাক্কারজনক বক্তব্যের প্রতিবাদে আমরা গিয়াস কাদের চৌধুরীকে খুঁজতে তার বাড়িতে গিয়েছিলাম। এ সময় তাকে না পেয়ে ফিরে আসার সময় আমাদের নেতাকর্মীরা কিছু ভাঙচুর চালায়।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের চকবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুল হুদা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আমরা খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছে। কী ঘটনা ঘটেছে আমরা তদন্ত করে দেখছি।