শেখ খালেদ মেজবাহ উদ্দীন,সীতাকুণ্ড : সীতাকুন্ডে বিএসআরএম এর স্ক্র্যাপ ভর্তি একটি লরি ইউপি চেয়ারম্যানের ডিপু থেকে উদ্বার করেছে ফোজদার হাট ফাঁড়ির পুলিশ।

ঘটনার বিবরনে জানা য়ায়, গভীর রাতে মাল অনির্দিষ্ট জায়াগায় স্ক্রাপ ভর্তি লরির মালামাল আনলোডিং করার সময় বিএসআরএম কর্মকর্তা ও ফৌজদারহাট পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে উদ্বার করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে বিএসআরএম এর কর্মকর্তা বাদী হয়ে সীতাকুন্ড থানায় নিয়মিত মামলা রজু করার প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় রয়েছে।

জানা যায়, বিদেশ থেকে আমাদানী করা কাঁচামাল (স্ক্র্যাপ) চট্টগ্রাম বন্দরে খালাশ করার পর বড় বড় লরির মাধ্যমে পরিবহন যোগে বিএসআরএম ওয়্যারহাউজ মিরশ্বরাই কারখানায় নিয়ে আসা হয়। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী পরিবহনের চালকদের যোগসাজসে লরি থেকে বোঝাইকৃত মালামাল চুরি করে নিজেদের পছন্দমত জায়গায় আনলোডিং করে আত্মসাৎ করে আসছিল। আনলোডিং শেষে চোরাইকৃত মালামাল পরে সুবিধামতো বিক্রি করে নিজেদের মধ্যে ভাগ-বাটোয়ারা করে নেয়। এভাবে প্রতিনিয়ত চলে আসছিলো কোম্পানীর লক্ষ লক্ষ টাকার স্ক্রাপ  চুরির উৎসব। যা কর্তৃপক্ষ গোপন সূত্রে জানতে পারে।

শুক্রবার রাতে বন্দর থেকে মাল বোঝাই এর পর কয়েকটি নিদির্ষ্ট লরির উপর নজর রাখে কর্তৃপক্ষ। চট্টমেট্রো-ঢ-৮১-১১৫৫ স্ক্র্যাপ বোঝাই লরিটি উপজেলার বানুবাজার ১০নং ছলিমপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন আজিজ এর মালাকানাধীন মেসার্স করফিয়ান ইন্টারঃ আই এন সি কুমিরা শিপ ব্রেকার্স লিঃ ডিপুতে প্রবেশ করে। এ সময় মালামাল বোঝাইকৃত লরি থেকে কিছু স্ক্র্যাপ সরানোর সময় কর্তৃপক্ষের নজরদারীতে থাকা টিমটি তৎক্ষনিক ভাবে পুলিশের সহায়তায় লরিটিকে আটক করে। পরে সীতাকুন্ড মডেল থানার সহায়তায় ফৌজদারহাট পুলিশ ফাঁড়ির অফিসার্স ইনচার্জ রফিক আহম্মদ মজুমদার গাড়িটিকে আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়।

মালামাল বোঝাইকৃত লরি সম্পর্কে জানতে চাইলে ১০নং ছলিমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন আজিজ জানান, আমি শুক্রবার রাতে ভাটিয়ারী ইউনিয়ন এর সালাহউদ্দিনের পিতার জানাযা শেষে আসার সময় দেখতে পাই আমার ডিপুর সামনে বিএসআরএম এর সিকিউরিটি গার্ডরা পুরো ডিপু ঘিরে আছে। ঘটনাটি জেনে আমি তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশকে জানাই এবং পুলিশের কাছে লরিটি সোপর্দ করি। কিছু লোক আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য চক্রান্ত করে উদ্ভুত পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে বলে আমি মনে করি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্তৃপক্ষের একজন কর্মকর্তা জানান, বন্দর থেকে স্ক্র্যাপ ভর্তি লরি বোঝাই করার পর মিরশ্বরাইস্থ বিএসআরএম ওয়্যারহাউজে নিয়ে যাওয়ার সময় একটি অসাধু চক্র লরির চালকদের যোগ-সাজসে বিভিন্ন পয়েন্টে লরি থেকে স্ক্র্যাপ সরিয়ে ফেলে বলে আমরা গোপন সূত্রে জানতে পারি। শুক্রবার রাতে কয়েকটি লরির পিছনে বিএসআরএম কর্তৃপক্ষের একটি নজরধারী টিম নজরদারীতে ছিল। রাত ১২টার সময় বানুবাজার ভাটিয়ারী এলাকায় চেয়ারম্যানের ডিপুতে বোঝাইকৃত লরি থেকে মাল সরানোর সময় ঐ টিম লরিটিকে আটক করে। পরে পুলিশ লরিটি উদ্ধার করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। পুলিশ ঐ চক্রটিকে শীঘ্রই আইনের আওতায় আনবে বলে আমি মনে করি।

এ ব্যাপারে ফাঁড়ির ইনচার্জের সাথে কথা বললে তিনি জানান, কর্তৃপক্ষের ফোন পেয়ে আমরা তাৎক্ষনিক ভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। এবং বোঝাইকৃত লরিটি আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে আসি। এ বিষয়ে মামলা রজু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।