বিদ্যাতলার পথিক : ‘সেতু’ বাংলাদেশ বেতার শ্রোতাদের জন্য বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০টি বিশেষ উদ্যোগ ভিত্তিক একটি অনুষ্ঠান সেতু। বন্দর নগরী চট্টগ্রামের আঞ্চলিক লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম এর আয়োজনে সর্বস্তরের বেতার শ্রোতা ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দের উপস্থিতিতে জাঁকজমকপূর্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ বেতার, চট্টগ্রামের আঞ্চলিক পরিচালক এস এম আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট বেতার ব্যক্তিত্ব বেগম সাবিহা নাহার মুসা । এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নুরে আলম মিনা, বিপিএম,পিপিএম,পুলিশ সুপার চট্টগ্রাম ও হাবিবুর রহমান,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) চট্টগ্রাম।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড.অনুপম সেন আনুষ্ঠানিকভাবে ‘সেতু’ বেতার শ্রোতা সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষনা করেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সালাহউদ্দিন আহমদ প্রমুখ ব্যক্তিগন।

এই মহতি আয়োজনের বিষয়ে  বক্তাগন বলেন, বাংলাদেশের এখনো প্রত্যন্ত অঞ্চলের লোকজন এখনো যারা নেটওয়ার্কের বাইরে তাদের সহ সমগ্র মানুষের জীবন যাত্রার মনোন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তাছাড়া বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যে মাধ্যমটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন তা হচ্ছে স্বাধীন বাংলা বেতার।

ড.অনুপম সেন তার উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে মহাকাব্যিক ভাষণ দিয়েছিলেন তা প্রথম বেতার কেন্দ্রের  মাধ্যমেই সমগ্র বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়েছিলো। বাংলাদেশ বেতার শিক্ষা, গনস্বাস্থ্য, সাংস্কৃতিক জীবন যাপনের মানোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। বেতারের এই ঐতিহ্য কে সমুন্নত রাখতে বেতারের সাথে শ্রোতার যোগাযোগ ও তাদের ইচ্ছার স্বাধীনতাকে প্রধান্য দিতে হবে। এই লক্ষেই আজকের এই বেতার শ্রোতা সম্মেলন।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন ও ডকুমেন্টারি প্রদর্শিত হয়। প্রদর্শনী শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তি পরিবেশনা ছিলো উপভোগ করার মতো।